ডায়াবেটিস রোগীর উন্নত সেবায় কাজ করবে মেডট্রনিক ও ড্যাব

ঢাকাঃ বাংলাদেশে ডায়াবেটিস সেবার মান উন্নয়নে এক সাথে কাজ করবে মেডট্রনিক(MEDTRONIC)এবং ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ(DAB)

ডায়াবেটিস রোগ সম্বন্ধে মা নুষের সচেতনতা বৃদ্ধি এবং ডায়াবেটিস কেয়ার থেরাপীর সহজ লভ্যতা নিশ্চিত করার লক্ষে এই অংশীদারিত্ব হাজারো ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীর উপকার করবে

ঢাকা, বাংলাদেশ (অক্টোবর ১১, ২০১৭)-যে সকল ডায়াবেটিস রোগী ডায়াবেটিস কেয়ার থেরাপি টেকনোলজি ব্যবহার করেন, তাদের সেবার মানোন্নয়নে মেডট্রনিক পি. এল. সি.(NYSE:MDT), ভারতের পুরোপুরি মালিকানাধীন সহায়ক প্রতিষ্ঠান ‘ইন্ডিয়া মেডট্রনিক প্রাইভেট লিমিটেড’ ও ‘ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ’- এর সাথে কৌশলগত অংশীদারিত্বের ঘোষনা দিয়েছে। প্রতিষ্ঠান দুটি সম্প্রতি ভারতের মুম্বাই শহরে এ সংক্রান্ত একটি সমঝোতা চুক্তি সাক্ষর করেছে। এই সমঝোতা স্মারকে সাক্ষর করেছেন মেডট্রনিক, এশিয়া প্যাসিফিক-এর সভাপতি বব হোয়াইট, মেডট্রনিক, ভারতীয় উপ-মহাদেশের সহ-সভাপতি মদন কৃষ্ণাণ এবং ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-এর সভাপতি প্রফেসর ড. এ কে আজাদ খান।

বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যা ১৬ কোটি। পৃথিবীর যে সকল দেশে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক লোক ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত, তাদের মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। ইন্টারন্যাশনাল ডায়াবেটিস ফেডারেশন (আইডিএফ)এর হিসাব অনু্যায়ী বাংলাদেশে প্রায় ৭১ লক্ষ মানুষ এ রোগে আক্রান্ত। এমনকি প্রায় সমান সংখ্যক মানুষ, যারা এই রোগে আক্রান্ত তারা জানেন না যে তারা আক্রান্ত। ২০২৫ সালের মধ্যে এই সংখ্যা প্রায় দ্বিগুণ হবে বলে অনুমান করা হচ্ছে।

সেইক্ষেত্রে আরো অধিক স্ক্রিনিং, ডায়াগনোসিস এবং চিকিৎসা সেবার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। ডায়াবেটিস কেয়ার থেরাপি এবং চিকিৎসার দক্ষতার ব্যবহারের মাধ্যমে বিশ্বমানের ডায়াবেটিস সেবা সহজলভ্য করার লক্ষে ইন্ডিয়া মেডট্রনিক প্রাইভেট লিমিটেড এবং ডায়াবেটিক এ্যাসোসিয়েসন অফ বাংলাদেশ যৌথ ভাবে একত্রিত হয়ে কাজ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এর সাথে নিবন্ধিত সকল ডায়াবেটিস আক্রান্ত রোগীরা এই সেবা পাবেন।

এই যৌথ অংশীদারিত্বের বিষয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে মেডট্রনিক, এশিয়া প্যাসিফিক-এর সভাপতি বব হোয়াইট বলেন, “ভারতের মোট জনসংখ্যার ৮ শতাংশ ও বাংলাদেশের ১০ শতাংশ ডায়াবেটিস রোগে আক্রান্ত। এই বিশাল জনসংখ্যাকে চিকিৎসা সেবার আওতায় আনা সত্যিই চ্যালেঞ্জের। ক্রমবর্ধমান এই রোগ রোগীর স্বাস্থ্য ও সমাজের উপর এক ধরনের বোঝা স্বরূপ। ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সাথে আমাদের এই চুক্তি এই রোগের চিকিৎসা ও ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে আমাদের কমিটমেন্টকে তুলে ধরে।”

তিনি আরো বলেন-মেডট্রনিকের মূল লক্ষ্য হলো বাংলাদেশের ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য চিকিৎসা সেবা সহজলভ্য করা, চিকিৎসার মান উন্নয়ন ও নিবিড় সেবার ব্যবস্থা করা, যার ফলে এই রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিরা আরো মুক্ত ও সুস্থ জীবন যাপন করতে পারবে। মেডট্রনিক’ ডায়াবেটিসের মত দূরারোগ্য রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জন্য এমন চিকিৎসা পদ্ধতি উদ্ভাবনে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ -যা হবে সাশ্রয়ী ও যেটা রোগীদের জীবন মানের উন্নয়ন ঘটাবে।

মেডট্রনিক, ভারতীয় উপ-মহাদেশের সহ-সভাপতি মদন কৃষ্ণাণ বলেন, ভারতে প্রায় ৮% (প্রায় সাড়ে ৬ কোটিরও বেশি)মানুষ এই রোগে আক্রান্ত বলে নির্ণয় করা হয়েছে আর বাংলাদেশে এর সংখ্যা ১০% এর মত। রোগীর দীর্ঘমেয়াদী স্বাস্থ্য এবং সাথে সাথে সমাজের উপরও ডায়াবেটিসের এই ক্রমবর্ধমান বোঝার একটি ব্যাপক প্রভাব রয়েছে। ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এর সাথে আমাদের এই যৌথ কর্মপরিকল্পনা ডায়াবেটিস চিকিৎসা সেবার উন্নয়ন ও ডায়াবেটিস ব্যবস্থাপনা এবং শারীরিক কষ্ট প্রশমন, স্বাস্থ্য পুনরুদ্ধার করা, এবং জীবনকে আরো প্রসারিত করার জন্য আমাদের প্রতিজ্ঞার প্রতিফলন”।

এই সেবা প্রদান শুরু হবে ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের সর্বাঙ্গীণ স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্র বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব রিসার্চ অ্যান্ড রিহ্যাবিলিটেশন ইন ডায়াবেটিস, অ্যান্ড্রক্রিন অ্যান্ড মেটাবলিক ডিসওর্ডারস (বারডেম)-এ, যা সমগ্র বিশ্বের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সংখ্যক ডায়াবেটিক রোগীদের চিকিৎসা সেবা দিয়ে থাকে।

এই যৌথ কর্ম পরিচালনার মাধ্যমে মেডট্রনিক এবং ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ যা যা করবে তা হলো ঃ
রোগী চিহ্নিত করা, প্রশিক্ষণ ও ইন্সুলিন পাম্প দেয়া, সার্বক্ষণিক গ্লুকোজ এর পর্যবেক্ষণ করা, ভর্তুকি দিয়ে সেন্সরস এবং অন্যান্য চিকিৎসা দ্রব্যাদি প্রদান করা।

৩য় পক্ষের মাধ্যমে অর্থায়নে সহযোগিতা প্রদান করা যাতে করে ডায়াবেটিস থেরাপি আরো সুলভ ও সাশ্রয়ী হয়।
ডক্টর এবং নার্সদের সহযোগিতা এবং প্রশিক্ষণ দেয়া।

শিক্ষাবিষয়ক কার্যক্রমের মাধ্যমে টাইপ ১ এবং টাইপ ২ ডায়াবেটিস সম্বন্ধে সচেতনতা বৃদ্ধি করা।
রোগীদের স্বাস্থ্য সম্পর্কিত ব্যাপার গুলোর জন্য একটি সার্বক্ষণিক হেল্প লাইন প্রতিষ্ঠা করা।

ডায়াবেটিক অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-এর সভাপতি প্রফেসর ড. এ. কে. আজাদ খান বলেন,“সকল আর্থ সামাজিক পর্যায়ের ডায়াবেটিস রোগীদের সাহায্য করতে এবং তাদের সেবা নিশ্চিত করার জন্য মেডট্রনিক এর সাথে সহযোগী হতে পেরে আমরা আনন্দিত। ডাক্তার এবং রোগী উভয়েরই এই ডায়াবেটিস সেবা পদ্ধতির সাথে জড়িত হওয়া উচিৎ এবং আমরা রোগীর জন্য মানসম্মত চিকিৎসা সেবা ও তাদের জীবনের মান উন্নয়নের জন্য মান সন্মত সেবা দিতে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।”

-বিবিএম